পাকিস্তান চ্যাম্পিয়ন

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতকে রীতিমতো উড়িয়ে দিয়ে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির প্রথম শিরোপা জিতেছে পাকিস্তান। ফাইনালে তারা ভারতকে হারিয়েছে ১৮০ রানে। ফখর জামানের সেঞ্চুরিতে পাকিস্তানের করা ৩৩৮ রানের জবাবে ভারত গুটিয়ে যায় ১৫৮ রানে। ফাইনাল সেরা হয়েছেন পাকিস্তানের ফখর জামান আর টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় বোলার হাসান আলী।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: পাকিস্তান ৩৩৮/৪, ৫০ ওভার (ফাখার ১১৪, আজহার ৫৯, হাফিজ ৫৭, বাবর ৪৬, ভুবনেশ্বর ১/৪৪, কেদার ১/২৭, পান্ডিয়া ১/৫৩) ; ভারত ৩০.৩ ওভারে ১৫৮ (পান্ডিয়া ৭৬; আমির ৩/১৬, হাসান আলী ৩/১৯); ফলঃ পাকিস্তান ১৮০ রানে জয়ী

টুর্নামেন্টের শুরুতে যারা ফেবারিটের তালিকাতেই ছিলো না, শেষ পর্যন্ত সেই পাকিস্তানই চ্যাম্পিয়ন। অন্যদিকে, ব্যাটিংয়ে প্রায় অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠা ভারতের টপ অর্ডার ফাইনালে এসে এভাবে ধাক্কা খাবে তাও হয়তো ভাবেনি কেউ। সবমিলে ২০০৯ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর আইসিসির কোন শিরোপা জয়ের উৎসবে মাতোয়ারা পাকিস্তান।

পুঁজি যতো বড়ই হোক, ভারতকে হারাতে শুরুতেই প্রয়োজন উইকেট। সে লক্ষ্যে পুরোপুরি সফল পাকিস্তান। মোহাম্মদ আমিরের তৃতীয় বলেই এলবিডব্লিওয়ের শিকার রোহিত শর্মা। এক ওভার পর ভারতীয়দের ভরসার প্রতীক হয়ে ওঠা ভিরাট কোহলি আউট হলে, ম্যাচ হাতে পাওয়ার আনন্দে মাতে পাকিস্তানিরা। দলীয় ৩৩ রানে শিখর ধাওয়ান আমিরের তৃতীয় শিকার হলে, আত্মিবশ্বাসে টুইটুম্বর হয়ে ওঠে পাকিস্তান।

আক্রমণে বদল এনেও সফল সফররাজ খান। দুই প্রান্ত থেকে হাসান আলী আর শাদাব খান মিলে যুবরাজ, ধোনি আর কেদার যাদবের উইকেট ভাগাভাগি করলে, শুধু হার নয়, বড় হারের শংকায় পড়ে ভারত।

এরপর হারদিক পান্ডিয়ার লড়াকু ৭৬ রানে পরাজয়ের ব্যবধান কমেছে মাত্র।

 

 

এর আগে সকালে টস জিতে পাকিস্তানকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান কোহলি। কিন্তু ভারতীয় বোলারদের কাজটা কঠিন করে দেন ইনিংসের চতুর্থ ওভারে জাসপ্রিত বুমরার ওভার স্টেপিং থেকে জীবন পাওয়া ফখর জামান।

সঙ্গী আজহার আলীকে নিয়ে লন্ডনের আচমকা গরমের মতোই পাকিস্তান ইনিংসের চেহারা বদলে দেন এই ওপেনার। অবিচ্ছিন্ন হওয়ার আগে দুজনের ব্যাট থেকে আসে ১২৮ রান। এরমধ্যে হাফ সেঞ্চুরির পর ব্যক্তিগত ৫৯ রান আউটের শিকার হন আজহার আলী।

তবে বাবর আজমকে নিয়ে ঠিকই দর্শকদের সঙ্গে ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরির আনন্দ ভাগাভাগি করেন ফখর জামান। শেষ পর্যন্ত তিনি ব্যক্তিগত ১১৪ ফিরে গেলেও, পঞ্চম উইকেটে ৭১ রানের জুটিতে দলের রানটা ৩৩৮ এ নিয়ে যান হাফিজ আর ইমাদ ওয়াসিম।

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন