নেইমার নামছেন আজ

আজ পিএসজির হয়ে অভিষেক হবে নেইমারের। ফরাসি লিগে বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় পিএসজির প্রতিপক্ষ গুইনগ্যাম্প।

দুদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিভিন্ন ফুটবল গ্রুপে একটি প্রশ্ন করছেন অনেকে। রোববার পিএসজির প্রতিপক্ষ দলটির নামের উচ্চারণ কি? রোমান হরফে যে বানান তাতে ইংরেজি উচ্চারণ হয় গুইনগ্যাম্প, কিন্তু ফরাসী উচ্চারণ বেশ কঠিন।

ফ্রান্সের লিগ ওয়ান নিয়ে ফুটবলপ্রেমীদের মোনে এখন এ ধরনেরই নানা প্রশ্ন। কারণ একটাই, নেইমারের পিএসজিতে যোগ দেয়া। বিশ্বরেকর্ড গড়ে প্রায় ২২২ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে তিনি হয়েছেন প্যারিসের ফুটবলার। এমন ঘটনায় ফ্রেঞ্চ লিগ নিয়ে সবার কৌতুহল এখন অনেক বেশি। পিএসজিকে নিয়ে যাদের এতোদিন আগ্রহ ছিলো না তারাই জানতে চাইছে নেইমারের সঙ্গী কারা? এই দলটির শক্তিমত্তা কেমন? লিগ ওয়ানের বাকী দলগুলোইবা কেমন?

গেলো মৌসুমে রানার আপ হতে হয় পিএসজিকে। কারণ, মোনাকো কাটিয়েছে একটি দুর্দান্ত মৌসুম। রাদাম্যাল ফ্যালকাওয়ের মতো অভিজ্ঞ স্ট্রাইকারের সঙ্গে তাদের রয়েছে ভবিষ্যতের তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পে। এই জুটির কল্যাণে ফরাসি লিগ জয়ের পাশাপাশি চ্যাম্পিয়ন্স লিগেও সেমিফাইনাল পর্যন্ত খেলেছে মোনাকো। এবারও লিগ শিরোপার দাবিদার তারা।

নেইমার যোগ দেয়ায় এবার পিএসজি যথেষ্ট শক্তিশালী। আক্রমণভাগে নেইমারের সঙ্গে থাকছেন কাভানি ও ডি মারিয়া। আর্জেন্টাইন তারকা ডি মারিয়া এর আগে রিয়াল মাদ্রিদ ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে দুর্দান্ত খেলেছেন। উরুগুয়ের এডিসন কাভানি দলের মূল স্ট্রাইকার। জাতীয় দল কিংবা ক্লাব দুজায়গাতেই তিনি পরীক্ষিত এবং বেশ অভিজ্ঞ।

গোলবারে আছেন ফ্রান্স জাতীয় দলের রিজার্ভ কিপার আরেওলা। এরপর যে চারজন ডিফেন্ডার রয়েছেন তার তিন জনই ব্রাজিলিয়ান। এরা হলেন দানি আলভেস, মারকুইনহোস এবং থিয়াগো সিলভা। দলের একটাই খুঁত। মাঝমাঠে একজন উচুমানের প্লেমেকার তাদের নেই। রয়েছে তিন সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার।

এমন একটি দল নিয়েই চ্যাম্পিয়ন্স লিগ এবং ফরাসী লিগ জয়ের স্বপ্ন দেখছে পিএসজি। তবে নেইমারের চোখ নিজের প্রথম ম্যাচের দিকে। গুইনগ্যাম্পের বিপক্ষে নিজেকে উজার করে দিতে প্রস্তুত তিনি। অনুশীলনেই নেইমারের ঝলক দেখেছে তার সতীর্থরা। সেখানে বুঝিয়ে দিয়েছেন পিএসজির হয়ে সর্বোচ্চ চেষ্টাই চালাবেন তিনি।

এমিয়েন্সের বিপক্ষে ২-০ গোলের জয় দিয়ে এবারের আসর শুরু করেছে পিএসজি। কিন্তু নেইমার না খেলায় সেই ম্যাচ নিয়ে দর্শকদের আগ্রহ দেখা যায়নি খুব একটা। এবার যখন নেইমারের অভিষেকের মুহূর্ত এসেছে, তখন এল ক্লাসিকোর রাতেও ফুটবলপ্রেমীরা অপেক্ষায় আছেন এই ম্যাচটি দেখার জন্য। টেলিভিশনের সামনে বসা দর্শকরা যে বারবার চ্যানেল পরিবর্তন করবেন সেটা বলে দেয়াই যায়।

কোন মন্তব্য নেই

মন্তব্য করুন